সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
MIMS 24
অর্থনীতি এই মাত্র প্রিয় লেখক বাংলাদেশ ব্রেকিং মু: মাহবুবুর রহমান

মানব উন্নয়ন সূচকে ধারাবাহিক উন্নতি বাংলাদেশের

মু: মাহবুবুর রহমান

জাতিসংঘের মানব উন্নয়ন সূচকে আরো দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। ১৮৯টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ১৩৩তম। আগের বছর অবস্থান ছিল ১৩৫ তম।

গত বছর এক ধাপ এবং তার আগের বছর তিন ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। ২০১৬ সালের প্রতিবেদনে ১৩৯ তম অবস্থানে ছিল বাংলাদেশ। অর্থাৎ বাংলাদেশ গত কয়েক বছর ধরে মানব উন্নয়ন সূচকে ধীরে ধীরে উন্নতি করছে। গত ৫ বছরে ৮ ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ।

গত মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) প্রকাশিত জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি বা ইউএনডিপির ২০২০ সালের মানব উন্নয়ন প্রতিবেদনে বাংলাদেশের ১৩৩তম অবস্থানের তথ্য দেয়া হয়েছে। গত বছরের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে মানব উন্নয়ন সূচক (এইচডিআই, HDI-Human Development Index) প্রতিবেদন-২০২০ প্রকাশ করেছে ইউএনডিপি।

প্রতি বছর বিভিন্ন দেশের স্বাস্থ্য, শিক্ষা, আয় ও সম্পদের উৎস, বৈষম্য, জেন্ডার সমতা, দারিদ্র্য, কর্মসংস্থান, নিরাপত্তা, বাণিজ্য ও আর্থিক প্রবাহ, যোগাযোগ, পরিবেশের ভারসাম্য ও জনমিতির তথ্য বিশ্লেষণ করে মানব উন্নয়ন সূচক তৈরি করে ইউএনডিপি।

এসব মানদণ্ডে এবার বাংলাদেশের মানব উন্নয়ন সূচকে স্কোর দাঁড়িয়েছে শূন্য দশমিক ৬৩২। গত বছর ছিল শূন্য দশমিক ৬১৪। যে দেশ পূর্ণসংখ্যা ১-এর যত কাছাকাছি সে দেশ মানব উন্নয়ন সূচকে তত উন্নত ধরা হয়।

সার্বিকভাবে এবারের মানব উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থার উন্নতি হয়েছে। এক বছরের ব্যবধানে বাংলাদেশ দুই ধাপ এগিয়েছে। এবারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ১৮৯টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩৩তম। গতবার বাংলাদেশ ছিল ১৩৫তম স্থানে। ভারত ও পাকিস্তান এবার দুই ধাপ করে পিছিয়েছে। ভারত ও পাকিস্তান যথাক্রমে ১৩১ ও ১৫৪তম স্থানে।

এবার দুই ধাপ পেছালেও এখনো বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে আছে আছে ভারত। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারত ছাড়া বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে আছে শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ ও ভুটান। এ বছর শ্রীলঙ্কার অবস্থান এক ধাপ পিছিয়ে ৭২তম হয়েছে। তারপরেও দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে এগিয়ে শ্রীলংকা। মালদ্বীপ ১০৪তম থেকে নয় ধাপ এগিয়ে ৯৫তম অবস্থানে উঠে এসেছে। এবং ভুটান পাঁচ ধাপ এগিয়ে ১২৯তম অবস্থানে উঠে এসেছে।

অন্যদিকে বাংলাদেশের পেছনে রয়েছে পাকিস্তান, নেপাল ও আফগানিস্তান। পাকিস্তান এক বছরের ব্যবধানে দুই ধাপ পিছিয়ে ১৫৪তম, নেপাল ৫ ধাপ এগিয়ে ১৪২তম এবং আফগানিস্তান এক ধাপ এগিয়ে ১৬৯তম অবস্থানে রয়েছে।

মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন অনুযায়ী, জনসংখ্যার তুলনায় চিকিৎসকের অনুপাতে বাংলাদেশের চেয়ে ভারত এগিয়ে আছে। ভারতে প্রতি ১০ হাজার নাগরিকের জন্য গড়ে ৮ দশমিক ৬ সংখ্যায় চিকিৎসক আছেন। বাংলাদেশে এই সংখ্যা ৫ দশমিক ৮। তিন দেশের মধ্যে পাকিস্তানে এই সংখ্যা সবচেয়ে বেশি ৯ দশমিক ৮।

তবে ভারতের চেয়ে বাংলাদেশের মানুষের হাসপাতাল শয্যাসুবিধা বেশি। বাংলাদেশের প্রতি ১০ হাজার নাগরিকের জন্য গড়ে ৮টি হাসপাতাল শয্যা আছে। ভারতে এর সংখ্যা ৬টি। এমনকি পাকিস্তানের চেয়েও এগিয়ে বাংলাদেশ। পাকিস্তানের প্রতি ১০ হাজার নাগরিকের জন্য গড়ে মাত্র ৬টি হাসপাতাল শয্যা আছে। যদিও চাহিদার তুলনায় এসব দেশে হাসপাতালের শয্যাসংখ্যা অপ্রতুল।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দারিদ্র্য হ্রাস বাংলাদেশে জন্মহার এবং মাতৃ ও শিশুমৃত্যুহার কমাতে সহায়তা করেছে। বাংলাদেশ যেসব সূচকে তুলনামূলক এগিয়ে আছে তার মধ্যে জেন্ডার বৈষম্য হ্রাস অন্যতম। বাংলাদেশে গড় আয়ু ৭২ দশমিক ৬ বছর। নারীদের ক্ষেত্রে গড় আয়ু আরও বেশি। ভারতে গড় আয়ু ৬৯ দশমিক ৭ বছর ও পাকিস্তানের মানুষের গড় আয়ু ৬৭ দশমিক ৩ বছর।

এবারের রিপোর্ট অনুযায়ী বিশ্বে মানব উন্নয়ন সূচকে আগের বছরের মতো শীর্ষে অবস্থান ধরে রেখেছে নরওয়ে। দেশটির স্কোর শূন্য দশমিক ৯৫৭। দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে আছে যথাক্রমে আয়ারল্যান্ড ও সুইজারল্যান্ড। এরপর আছে যথাক্রমে হংকং, আইসল্যান্ড, জার্মানি, সুইডেন, অস্ট্রেলিয়া, নেদারল্যান্ড ও ডেনমার্ক। সবার শেষে ১৮৯ নম্বরে রয়েছে আফ্রিকার দেশ নাইজার। দেশটির স্কোর শূন্য দশমিক ৩৯৪। শেষের দিকে আফ্রিকার দেশই বেশি।

১৯৯০ সাল থেকে মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছে ইউএনডিপি। যে দেশ মানব উন্নয়ন সূচকে যত এগিয়ে সে দেশ তত উন্নত বলে ধরা হয়।

Related posts

করোনায় মারা গেলেন মমতা ব্যানার্জির ভাই

Irani Biswash

এখনো টিকা উৎপাদনের অনুমতি দেওয়া হয়নি: ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর

Irani Biswash

ভক্তদের নিজের প্রস্রাব-মল খাওয়াতেন ভণ্ড বাবা, আশ্রমে ১১ লাশ

razzak

Leave a Comment

Translate »