অক্টোবর ১, ২০২২
MIMS 24
আইন ও বিচার আন্তর্জাতিক এই মাত্র প্রিয় লেখক ব্রেকিং মু: মাহবুবুর রহমান

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার করা মামলা সমর্থনে শতাধিক ব্রিটিশ এমপি

মু: মাহবুবুর রহমান

রোহিঙ্গা গণহত্যা নিয়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিচার আদালত (আইসিজে) তে গাম্বিয়ার করা মামলার সমর্থনে যুক্তরাজ্য সরকারকে হস্তক্ষেপ করার আহবান জানিয়েছেন দেশটির শতাধিক সংসদ সদস্য।

১৭ই ডিসেম্বর যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র ও কমনওয়েলথ বিষয়ক মন্ত্রী ডমিনিক রাবের প্রতি লেখা এক চিঠিতে এ আহবান জানানো হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের অধিকার সম্পর্কিত সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপের কো-চেয়ার রুশনারা আলী ও জেরেমি হান্ট যুক্তরাজ্যের ১০৪ জন সংসদ সদস্যের পক্ষে এই চিঠিতে স্বাক্ষর করেন। পরে ব্রিটিশ এমপি রুশনারা আলী এক টুইটে তাদের এ উদ্যোগের কথা জানান।

চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘কেবল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে ও আন্তর্জাতিক আইনকে সমর্থন করতেই নয়, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর দ্বারা আরও আন্তর্জাতিক অপরাধ রোধেও দায়মুক্তির অবসান জরুরি।‘

চিঠিতে সংসদ সদস্যরা বলেন, ‘আমরা নিশ্চিত যে, যুক্তরাজ্য যদি এই মামলায় হস্তক্ষেপ করে, তবে আইনগত ও প্রতীকীভাবে এতে উল্লেখযোগ্য সহযোগিতা হবে।’

যুক্তরাজ্যের সংসদ সদস্যদের চিঠিতে আরও বলা হয়, ‘মানবাধিকারের বিষয়ে যুক্তরাজ্য ঐতিহাসিকভাবে বিশ্বকে নেতৃত্ব দিয়েছে। যুক্তরাজ্য এখন জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের “পেন হোল্ডার” এবং যৌন সহিংসতা প্রতিরোধ উদ্যোগের প্রতিষ্ঠাতা।’

‘একইসঙ্গে আমাদের নেতৃস্থানীয় ভূমিকা এবং নিরাপত্তা পরিষদের পেন হোল্ডার হিসেবে আমাদের মর্যাদা থাকা সত্ত্বেও, এ মামলায় আমাদের যোগ দিতে না পারা দায়মুক্তি মোকাবিলার প্রতিশ্রুতি সম্পর্কে সামরিক বাহিনীকে ভুল বার্তা দিতে পারে’, এতে যোগ করা হয়।

ব্রিটিশ সংসদ সদস্যরা বলেন, ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘন অব্যাহত আছে। সাম্প্রতিক নির্বাচনে রোহিঙ্গাদের বঞ্চিত করা হয়েছে। মিয়ানমার সরকারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিরাপদ প্রত্যাবর্তনের কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। সুতরাং এটি স্পষ্ট যে, এখনই অনেক কিছু করা প্রয়োজন।’

চিঠিতে আরো বলা হয়, এই মামলায় যুক্তরাজ্য সরকারের হস্তক্ষেপ নিঃসন্দেহে ভালো ফলাফল বয়ে আনবে। কানাডা ও নেদারল্যান্ডস ইতোমধ্যে এ মামলায় গাম্বিয়াকে সমর্থন দিয়েছে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযান শুরুর পর কয়েক মাসের মধ্যে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়। ওআইসিভুক্ত পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়া ২০১৯ সালের ১১ই নভেম্বর মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যা প্রতিরোধ ও এর শাস্তির বিধানে ১৯৪৮ সালে স্বাক্ষরিত ‘জেনোসাইড কনভেনশন’ লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে আইসিজে তে এ মামলা করে৷

গাম্বিয়া নিজে ওই কনভেনশনে স্বাক্ষরকারি দেশ এবং ১৯৫৬ সালে মিয়ানমারও স্বাক্ষর করে৷

পরে চলতি বছরের ২৩শে জানুয়ারি নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগের আন্তর্জাতিক বিচার আদালত (আইসিজে) গুরুত্বপূর্ণ রায় দেন। রাখাইন রাজ্যে বর্তমানে থাকা ছয় লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যার মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে উল্লেখ করে মিয়ানমারকে গণহত্যা রোধ করতে, প্রমাণাদি ধ্বংস করা বন্ধ করতে ও এ বিষয়ে রিপোর্ট দিতে বলা হয়।

মু: মাহবুবুর রহমান ; নিউজিল্যান্ডের মেসি ইউনিভার্সিটির পিএইচডি গবেষক

Related posts

অক্সফোর্ডের টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দিল ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

Mims 24 : Powered by information

তৈজসপত্র ও সেবায় কর বাড়াচ্ছে ভারত

razzak

আজ মহান মে দিবস

Irani Biswash

Leave a Comment

Translate »