ডিসেম্বর ৯, ২০২২
MIMS 24
এই মাত্র বিনোদন ব্রেকিং

অভিনেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান দিলু আর নেই

অভিনেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান দিলু বাংলাদেশের স্থানীয় সময় ভোর ৬.৪৬ মিনিটে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহে ওইন্নাইলাহির রাজেউন)।

সম্প্রতি তিনি ফুসফুসের অসুখে ভুগছিলেন। গত ১২ জানুয়ারি তার শরীরের অবস্থার অবনতি ঘটে। জরুরি ভিত্তিতে উত্তরার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানেই তার মৃত্যু হয়। ১৫ জানুয়ারি সন্ধ্যায় তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। হাসপাতালে ডা. ওমর ফারুকের তত্ত্বাবধানে ছিলেন এ অভিনেতা।

স্মৃতি হয়ে গেলেন অভিনেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান দিলু

মৃত্যুকালে অভিনেতা দিলুর বয়স হয়েছিল বছর ৬৯ বছর। তিনি স্ত্রী ও তিন সন্তান রেখে গেছেন। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আজ বেলা একটায় অভিনেতা দিলুকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে নেওয়া হবে। সেখানে জানাজা শেষে বেলা তিনটায় তাঁকে নেওয়া হবে শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে। সেখানে শ্রদ্ধা জানানো শেষে নেওয়া হবে বনানী কবরস্থানে। সেখানে গার্ড অব অনার জানিয়ে দাফন করা হবে।

‘সংশপ্তক’ নাটকের মালু চরিত্রের কথা নিশ্চয় সবার মনে আছে। অভিমানে লম্বা সময় ধরে অভিনয় থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন মালুখ্যাত মুজিবুর রহমান দিলু। তাঁর জন্ম ১৯৫২ সালের ৬ নভেম্বর।

টিভি নাটকের আগে থেকেই এই অভিনেতা মঞ্চে অভিনয় করছেন। মঞ্চ থেকে তাঁর অভিনয় শুরু। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে তালিকাভুক্ত শিল্পী হন। ১৯৭৬ সাল থেকে টেলিভিশনে নিয়মিত অভিনয় করছেন। তবে মাঝে দীর্ঘদিন অভিনয় থেকে দূরে ছিলেন। স্ত্রী রানী রহমান, দুই ছেলে অয়ন রহমান, অতুল রহমান ও এক মেয়ে তানজিলা মুজিবকে নিয়ে ঢাকার উত্তরায় বসবাস করতেন মুজিবুর রহমান দিলু।

পরিবারের সদস্যদের সাথে অভিনেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান দিলু
তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্বাহী পরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। মজিবুর রহমান দিলুর উল্লেখযোগ্য মঞ্চনাটক হচ্ছে ‘আমি গাধা বলছি’, ‘নানা রঙ্গের দিনগুলি’, ‘জনতার রঙ্গশালা’, ‘নীল পানিয়া’, ‘আরেক ফাল্গুন’, ‘ওমা কী তামাশা’ প্রভৃতি। এ ছাড়া বাংলাদেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় নাটক ‘তথাপি’, ‘সময়–অসময়’ ও ‘সংশপ্তক’-এ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন। ২০০৫ সালে গুলেন বারি সিনড্রোমে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন কোমায় ছিলেন দিলু। পরে তিনি সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন শুরু করেন।
ছোট ভাই অভিনেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান দিলুর মৃত্যুতে বড় ভাই প্রখ্যাত অভিনেতা আতাউর রহমান ফেসবুকে দেয়া ষ্ট্যাটাসে লিখেন, “আমার ছোট ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা, কীর্তিমান মঞ্চ ও টেলিভিশন অভিনেতা মুজিবুর রহমান দিলু নিউমনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে এই পৃথিবীর মায়া ছেড়ে অসীমের যাত্রী হয়েছেন। সে জীবন যুদ্ধে যেমন ছিল এক পরাক্রান্ত সৈনিক, তেমনি ছিল এক বর্ণিল জীবনের অধিকারী। তার আত্মার চির শান্তি কামনাই দেশবাসীদের কাছে আমাদের প্রত্যাশা।”

Related posts

মেসির রেকর্ডের রাতে বড় জয় পেল পিএসজি

razzak

গভীর সংকটে শ্রীলঙ্কায়, ফুরিয়ে আসছে ওষুধ

razzak

সরকারি স্কুলে ভর্তির লটারি আজ

razzak

১ comment

H Rainy জানুয়ারী ১৯, ২০২১ at ৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

ইন্না লিল্লা‌হি ওয়া ইন্না ইলাই‌হি রা‌জিউন। মহান আল্লাহ সুবহানাতা’লা ওনা‌কে জান্নাতুল ফির‌দৌস ন‌সিব করুন, আ’মীন।

Reply

Leave a Comment

Translate »