আন্তর্জাতিক কোভিড ১৯ জনদুর্ভোগ জাতীয় জীবনধারা দুর্ঘটনা বাংলাদেশ ব্রেকিং স্বাস্থ্য

অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস মেলাইটাস রোগিদের জন্য ব্লাকফাঙ্গাস ভয়ঙ্কর

নিজস্ব সংবাদদাতা: সম্প্রতি করোনা মহামারির মধ্যে নতুন একটি আতঙ্ক সংযোজন হয়েছে। তার নাম ব্লাক ফাঙ্গাস।    মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস আদিকাল থেকেই পরিবেশের সঙ্গে রয়েছে। এটি একটি বিরল জাতের রোগ, এটি খুব বেশি সংখ্যক মানুষের হয় বলে তথ্য-উপাত্ত নেই। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের ওষুধগুলো সহজে পাওয়া যায় না। তাই এ পরিস্থিতিতে কেউ যেন সুযোগ নিতে না পারে সে বিষয়টি মাথায় রেখে অগ্রসর হচ্ছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

বুধবার দুপুরে অনলাইনে স্বাস্থ্য অধিদফতর আয়োজিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে এসব তথ্য জানান প্রতিষ্ঠানটির মুখপাত্র ও রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক (সিডিসি) অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম।

ব্রিফিংয়ে মিউওকরমাইকোসিসের চিকিৎসা ব্যয় বিষয়ে জানিয়ে অধ্যাপক নাজমুল বলেন, এটি একটি বিরল জাতের রোগ। খুব বেশি সংখ্যক মানুষের হয় বলে তথ্য-উপাত্ত আমাদের বলে না। তবে অবশ্যই এর চিকিৎসা ব্যয়বহুল, এতে কোনো সন্দেহ নেই। এ বিষয়টি নিয়ে আমরা গত কিছুদিন ধরে ক্রমাগত কাজ করছি।

তিনি বলেন, আমাদের ক্লিনিক্যাল ম্যানেজমেন্ট কমিটি আছে, তাদের সঙ্গে আলোচনা করেছি এবং একটি গাইডলাইন প্রণয়ন করার চেষ্টা করছি। একইসঙ্গে এই রোগ মোকাবিলায় যেসব ওষুধপত্র লাগে, সেগুলো কিভাবে সহজলভ্য করা যায় সেগুলো নিয়েও আমরা কাজ করছি।

তিনি আরও বলেন, অল্প সময়ের মধ্যে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা দেবো। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের ওষুধগুলো সহজে পাওয়া যায় না। তাই এ পরিস্থিতিতে কেউ যেন সুযোগ নিতে না পারে সে বিষয়টি মাথায় রেখে আমরা অগ্রসর হচ্ছি।

অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম বলেন, আমরা দেখতে পাচ্ছি মিউকরমাইকোসিস (ব্ল্যাক ফাঙ্গাস) নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে এক ধরনের উদ্বেগ বা উৎকণ্ঠা তৈরি হয়েছে। আমরা দেশবাসীকে আশ্বস্ত করতে চাই, এই রোগটি আদিকাল থেকে আমাদের পরিবেশের সঙ্গে আছে। বিশেষ পরিস্থিতি ও ক্ষেত্রবিশেষে এর প্রাদুর্ভাব ও সংখ্যাধিক্য দেখা যেতে পারে।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে যেসব রোগীর ক্ষেত্রবিশেষ স্টেরয়েড ব্যবহার করতে হয় ও যাদের অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস মেলাইটাস আছে তাদের জন্য ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সত্যিকার অর্থেই বিপদের কারণ হতে পারে। আমরা পরিস্থিতির দিকে গভীর পর্যবেক্ষণ করছি, আশা করছি এটি কোনো অবস্থাতেই নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারবে না।

তিনি আরও বলেন, আমরা দেখেছি ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে দুজন রোগী পাওয়া গেছে। যতক্ষণ পর্যন্ত সব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিশ্চিত ফলাফল হাতে না আসবে, ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা নিশ্চিত কিছু বলতে পারব না। তথ্য-উপাত্ত হাতে পেয়ে যদি সবাইকে জানাই তাহলে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা তৈরি হবে না। বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের পরস্পর পরস্পরকে সহযোগিতা করা উচিত।

Related posts

করোনা মোকাবেলায় ভুল পথে হাঁটছে যুক্তরাষ্ট্র: ডা. অ্যান্থনি ফাউসি

Irani Biswash

নিউজিল্যান্ডকে ৯ উইকেটে হারিয়ে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়

Mims 24 : Powered by information

লুহানস্কের ৯৭ ভাগই রাশিয়ার দখলে

razzak

Leave a Comment

Translate »