ডিসেম্বর ৮, ২০২২
MIMS 24
অর্থনীতি আইন ও বিচার কোভিড ১৯ জনদুর্ভোগ জাতীয় জীবনধারা বাংলাদেশ ব্রেকিং স্বাস্থ্য

সীমান্ত এলকায় করোনার প্রকট, মানছে না বিধিনিষেধ

নিজস্ব সংবাদদাতা:  সীমান্ত এলাকায় হঠাৎই করোনা বেড়ে গেছে।  সাতটি জেলাকেই  করোনার হটস্পট হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।  এসব এলাকায়  সংক্রমণ ও শনাক্তের হার ঊর্ধ্বমুখী হলেও  স্বাস্থ্যবিধি মানছে না কেউ।।

নওগাঁ এলাকায় বুধবার থেকে করোনা সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ায় ১৫ দফা নির্দেশনা দিয়ে জেলার পৌরসভা এলাকা ও নিয়ামতপুর উপজেলায় এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করা হয়। জেলা প্রশাসক মো. হারুন-অর-রশীদ বলেন, নওগাঁয় জনসাধারণের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধির প্রতি অনীহা দেখা যাচ্ছে। তাই প্রশাসনের একাধিক দল মাঠে থাকবে। জনসমাগমে নজরদারি করা হবে।

ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মঞ্জুর এ. মোর্শেদ বলেন, ঈদুল ফিতরের পর থেকে করোনা সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশের বেশি। নওগাঁ পৌরসভা ও সীমান্তবর্তী নিয়ামতপুরে দুই সপ্তাহ ধরে সংক্রমণের হার প্রায় ৫০ শতাংশ। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪৩ জন। কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হয় ২২ হাজার ২৪৯ জনকে। মোট আক্রান্ত ২৩ হাজার ১৬ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১১ জন এবং আইসোলেশনে আছে ৯ জন।

যশোর জেলা-উপজেলার সরকারি দফতর, ব্যাংক-বীমা ও হাতেগোনা কিছু শপিংমল ছাড়া মানুষজন মাস্ক ব্যবহার করছে না।

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্বদ্যিালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টার থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, ২ মে যশোরের ২৮৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৭০ জনের পজিটিভ পাওয়া গেছে। ৩১ মে ২২০ জনের নমুনায় পজিটিভ ছিল ২৯ জন।

এ ছাড়া সেন্টার থেকে বলা হয়, ২৯ মে যশোরের তিনটি উপজেলা থেকে প্রাপ্ত নমুনা পরীক্ষা করে ৮ জনের শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। তবে তারা কেউই ভারতফেরত নন।

করোনা নিয়ে বিপাকে আছে রাজশাহী। রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে মৃত্যুর সংখ্যা এবং শনাক্তের হার আচমকা বেড়ে যাওয়ায় স্থানীয় অনেককে মাস্ক পরতে দেখা গেছে।

তবে জেলার ২৩ লাখ ৭৮ হাজার মানুষের বেশিরভাগই পরিস্থিতির ভয়াবহতা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। প্রশাসন প্রচারণার পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা ও দণ্ড প্রদান করে যাচ্ছে।

রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরীফুল হক বলেন, ‘সুপার মার্কেট ও অফিসে স্বাস্থ্যবিধি মানা হলেও খোলাবাজারে একেবারেই মানছে না কেউ। সিটি করপোরেশন এলাকায় ৪টি ও ৯টি উপজেলায় প্রতিদিনই দুটি করে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছি।’

খুলনা জেলা করোনা  আক্রান্ত ও মৃত্যুতে বিভাগের মধ্যে  শীর্ষে রয়েছে। মে মাসে এ জেলায় মারা গেছেন ৪০ জন। এপ্রিলে সংক্রমণের গড় হার ছিল ২০ শতাংশ এবং মে মাসে এ হার দাঁড়ায় ২১ শতাংশে। এক মাসের ব্যবধানে সংক্রমণের গড় হার ১ শতাংশ বেড়েছে।

৩১ মে ৩১৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৯১ জন পজিটিভ পাওয়া যায়। সংক্রমণের হার ২৪ শতাংশ। মার্চে ছিল ৪ দশমিক ৮ শতাংশ।

খুলনার সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ বলেছেন, ‘ঈদুল ফিতরের আগমুহূর্তে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার উদ্বেগজনক হারে বাড়ে। ঈদের পর থেকে এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি স্থিতিশীল।’

তিনি আরও বলেন, ‘লকডাউনের বিষয়ে ২ জুন কোভিড-১৯ খুলনা জেলা কমিটির মিটিং ডাকা হয়েছে। সেখানে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

এক সপ্তাহে কুষ্টিয়া জেলায় ১৬৫ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

জেলা প্রশাসকের অফিস সূত্রে জানা যায়, ২৬ মে থেকে ২ জুন পর্যন্ত ২১৯ জন শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ২ জুন শনাক্ত হয়েছে ৫৪ জন এবং মারা গেছেন দু’জন। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ১১৬ জন।

কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এখানে পরিস্থিতি খারাপ বলবো না। তবে বাড়তির দিকে। এমন পরিস্থিতি আগেও দুবার হয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, কুষ্টিয়ায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত তিনজন পজিটিভ শনাক্ত হয়েছিলেন। তাদের মধ্যে দুজন ইতোমধ্যে নেগেটিভ হয়েছেন। অপরজন এখনও পজিটিভ। তিনি ঢাকায় চিকিৎসাধীন।

কুষ্টিয়ায় এ পর্যন্ত ৫ হাজার ৩২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন ১১৬ জন।

সাতক্ষীরা জেলার নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক আনিসুর রহিম বলেন, ইয়াসের পর কয়েকটি উপজেলা ঘুরে দেখলাম কারও মুখে মাস্ক নেই। ভারত থেকে অনেকে আসছেন। তারা মাস্ক পরছেন না। এ কারণে পরিস্থিতির এত অবনতি।

সিভিল সার্জন ডা. মো. হুসাইন শাফায়াত বলেন, ১৬ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১২৬২ জনের। পজিটিভ পাওয়া গেছে ২৭০ জনের। সংক্রমণের হার ২১ দশমিক ৩৯ শতাংশ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ৩০ মে ৮৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ আসে ৩৭ জনের। গতবছর থেকে এ পর্যন্ত জেলায় মারা গেছে ৪৭ জন।

তিনি আরও বলেন, এখন উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ১৩৮ জন। তাদের মধ্যে পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে ৫৩ জনের।

তিনি আরও বলেন, পজিটিভ ১৩৮ জনের মধ্যে সাতক্ষীরা সদরের ৩৯, কালিগঞ্জের ২৪, আশাশুনির ২০ ও শ্যামনগরের ১৫ জন।

দিনাজপুরের সীমান্তবর্তী হিলিতে বেড়ে চলেছে সংক্রমণের হার। ১-২ জুন নতুন করে আরও ৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। দু’দিনে ১০ জন আক্রান্ত হয়েছেন। আতংক বাড়ছে স্থানীয়দের মধ্যে।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় দিনাজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে এসব তথ্য জানানো হয়। ২৪ ঘণ্টায় ২৪৬টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছে ২২ জনের। এর মধ্যে হিলির আছে ৫ জন। আক্রান্তের হার ছিল ৮ দশমিক ৯৪ ভাগ। আগের দিন ১৬১টি নমুনা পরীক্ষায় ২৩ জন আক্রান্ত পাওয়া যায়। এর মধ্যেও হিলির ১ জন ছিলেন। শনাক্তের হার ছিল ১৪ দশমিক ২৮ ভাগ।

দিনাজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যমতে হিলিতে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১০৭ জন। এর মধ্যে একজন মারা গেছেন। ১৭ জন হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন।

নাটোর জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্যবিভাগের কঠোর পদক্ষেপে নাটোরে ৫ দিনের ব্যাবধানে সংক্রমণ অর্ধেকে নেমেছে। ২৮ মে’র পরীক্ষায় ৪৬ জন সংক্রমিত দেখা গেলেও ২ জুন সংক্রমণ নেমেছে ২৩ জনে।

সংক্রমণ আরও কমাতে চলমান কঠোর অবস্থান বজায় রাখবে প্রশাসন। জেলা প্রশাসক শাহরিয়াজ ও সিভিল সার্জন ডাক্তার মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন ডাক্তার মিজানুর রহমান জানান, ৫ মে নাটোরে করোনা পজিটিভ হন ৫ জন। ১২ মে ২ জন। কিন্তু ২৬ মে ৯ জন ও ২৮ মে একলাফে ৪৬ জনে দাঁড়ায়। এমন অবস্থায় শহরের প্রবেশমুখগুলোতে জনচলাচল সীমিত করা ছাড়াও মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়। পরিচালনা করা হয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এতে সংক্রমণ কমতে থাকে। ৩০ মে ২৩ জন, ৩১ মে ১১ জন, ১ জুন ১৭ জনে দাঁড়ায়। অবশ্য ২ জুন আবার ২৩ জন শনাক্ত হয়।

Related posts

দক্ষিণ কোরিয়ায় হ্যালোইন উৎসবে পদদলিত হয়ে নিহত ১৪৬, আহত দেড় শতাধিক

Mims 24 : Powered by information

সত্তর-আশির দশকের অপ্রতিদ্বন্দ্বী অভিনেতা  ওয়াসিম আর নেই

Irani Biswash

১২ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর ফের উদ্ধার অভিযান শুরু

razzak

Leave a Comment

Translate »