অপরাধ অর্থনীতি আইন ও বিচার জাতীয় জীবনধারা দুর্ঘটনা বাংলাদেশ ব্রেকিং সংগঠন সংবাদ সেবামূলক কাজ

সানলাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানির বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

 গাইবান্ধা সংবাদদাতা:   গাইবান্ধা জেলার ১ হাজার ১৮৩ জন গ্রাহকের বিমা দাবির ১ কোটি ৩১ লাখ ৬১ হাজার ৫১৫ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে সানলাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানির বিরুদ্ধে। স্থাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিকের পারিবারিক কোম্পানি এটি। এই কোম্পানির গ্রাহকদের বিমা পলিসির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে ২০১৪ সাল থেকে ২০২১ সালের মধ্যে। কিন্তু এখনো কোম্পানি থেকে গ্রহকদের পলিসির টাকা পরিশোধ করা হচ্ছে না।

এদিকে, বিমার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও সানলাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানি থেকে লভ্যাংশসহ পলিসির টাকা পরিশোধ না করায় কোম্পানিটির গাইবান্ধা জেলার মাঠ পর্যায়ের বিমা কর্মকর্তারা গ্রাহকের হাতে লাঞ্চিত হচ্ছেন। কেউ কেউ অপমান-লাঞ্ছনার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। মাঠ পর্যায়ের এই বিমা কর্মকর্তারা বলতে গেলে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা অব্যাহত রাখতে পারছেন না।

বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) সূত্রে জানা গেছে, পলিসির মেয়াদ শেষের পরও টাকা পরিশোধ না করায় সম্প্রতি গাইবান্ধা জেলার মাঠ পর্যায়ের বিমা কর্মকর্তারা আইডিআরএ’র কাছে অভিযোগ করেছেন সানলাইফের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রুবিনা হামিদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম, কোম্পানি সচিব রবিউল ইসলাম, অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আসলাম রেজা ও কোম্পানির রংপুর বিভাগীয় প্রধান মো. আবদুল খালেক বাদশার বিরুদ্ধে। বিমা নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির কাছে দাখিল করা লিখিত অভিযোগে বিমা গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ ও জালিয়াতির অভিযোগ আনা হয়েছে।

আইডিআরএ‘র নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র শাকিল আখতার বলেন, সানলাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানির বিরুদ্ধে সারাদেশ থেকেই আমাদের কাছে বিভিন্ন অভিযোগ আসছে। এসব অভিযোগ আমরা খতিয়ে দেখছি এবং ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন এলাকায় সানলাইফ ইনস্যুরেন্সের ১ হাজার ১৮৩ জন বিমা গ্রাহক রয়েছেন। তাদের অধিকাংশই দরিদ্র জনগোষ্ঠীর। ২০০৪ সাল থেকে সান লাইফে ইনস্যুরেন্সের গণমুখী বিমা পলিসির আওতায় তারা বিমা পলিসি গ্রহণ করেন। এসব পলিসির মেয়াদ ২০১৪ সাল থেকে ২০২১ সালের মধ্যে শেষ হয়েছে। কিন্তু লভ্যাংশসহ পলিসির টাকা ফেরত পাচ্ছেন না তারা।

স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা গেছে, পলিসির টাকা ফেরত না পেয়ে গ্রাহকরা মাঠ পর্যায়ের বিমা গ্রহণকারী কর্মকর্তাদের লাঞ্ছিত তো বটেই, কোথাও কোথাও রীতিমতো মারধর করছেন। গ্রাহকদের নির্যাতন ও অপমান সহ্য করতে না পেরে বিমা গ্রহণকারী মাঠ পর্যায়ের অনেক কর্মকর্তা নিজেদের বাড়িঘর ছেড়ে আত্মগোপনে রয়েছেন।

সূত্র জানায়, গাইবান্ধা জেলার ১ হাজার ১৮৩ জন বিমা গ্রাহকের ১ কোটি ৩১ লাখ ৬১ হাজার ৫১৫ টাকা দীর্ঘ ছয় বছরেও পরিশোধ না করায় গত ১৩ জুন গাইবান্ধা জেলার মাঠ পর্যায়ের বিমা কর্মকর্তা (এপিডি  গাইবান্ধা) মো. বাবুল সরকার আইডিআরএ‘র কাছে একটি আবেদন করেন। আবেদনে তিনি সানলাইফের চেয়ারম্যান, এমডি, কোম্পানি সচিব, অতিরিক্ত এমডি ও রংপুর বিভাগীয় প্রধানের বিরুদ্ধে গ্রাহকের বিমা পলিসির টাকা আত্মসাৎ, জালিয়াতি ও দুর্নীতির অভিযোগ আনেন। এই অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং গ্রাহকের টাকা ফেরত দেওয়ার ব্যবস্থা করার আবেদন করেন তিনি।

Related posts

১১ দিনে একই পরিবারে ৪ জনের মৃত্যু

razzak

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন: তথ্য যাচাইয়ে মিয়ানমারের প্রতিনিধিদল টেকনাফে

Mims 24 : Powered by information

১০ মাসে আড়াই লাখ কোটি টাকার বাণিজ্য ঘাটতি

razzak

Leave a Comment

Translate »