অক্টোবর ৫, ২০২২
MIMS 24
আন্তর্জাতিক এই মাত্র পাওয়া

পশ্চিমবঙ্গে উপনির্বাচনে বিজেপির শোচনীয় পরাজয়, বড় জয় আসামে

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে চারটি আসনের উপনির্বাচনে শোচনীয় পরাজয় হলো দেশটির ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি)। আগের দুটি জেতা আসন কোচবিহারের দিনহাটা এবং নদীয়ার শান্তিপুর তো বটেই, কোনো আসনেই তারা গত এপ্রিল মাসে পাওয়া বিধানসভা ভোটের ধারেকাছেও পৌঁছাতে পারেনি। একটি আসন বাদ দিয়ে তিনটি আসনেই বিজেপির জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে অর্থাৎ, ভোটের হার ১৬ শতাংশের নিচে চলে গেছে।

দুটি আসনে অর্থাৎ, দিনহাটা ও সুন্দরবনের গোসবায় তৃণমূল কংগ্রেসের ভোট ৮০ শতাংশের ওপরে উঠেছে। দিনহাটায় তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী প্রায় এক লাখ ৯০ হাজার ভোটে এবং গোসবায় তাদের প্রার্থী এক লাখ ৬১ হাজার ভোটে জিতেছেন।

এককথায় বলতে গেলে, বাংলাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর আক্রমণের বিষয়টিকে ইস্যু করে যে চার উপনির্বাচনে বিজেপি লড়েছিল, তা কোথাও ছাপ ফেলতে পারেনি। শান্তিপুরে বিজেপি ২৩ শতাংশ ভোট পেলেও সেখানেও ৬০ হাজারেরও বেশি ভোটে হেরেছে। উত্তর চব্বিশ পরগনার খড়দহে ব্যবধান প্রায় এক লাখের কাছাকাছি। এই বিরাট জয়ের কারণে মঙ্গলবার বিকেলের দিকে বিজেপিকে ব্যঙ্গ করে তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তাদের কালীপূজার ‘শব্দহীন শুভেচ্ছা’ জানিয়েছেন।

তবে আসাম রাজ্যে যেখানে বিজেপি ক্ষমতায় রয়েছে, সেখানে তারা খুবই ভালো ফল করেছে। পাঁচটির মধ্যে তিনটি আসন, ভবানীপুর, মারিয়ানি ও থওরায় তারা বেশ ব্যবধানে জিতেছে। দুটি আসনে জিতেছে তাদের জোটসঙ্গী ইউনাইটেড পিপলস পার্টি লিবারেল। বিগত বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস, মুসলিমপ্রধান দল অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (এআইইউডিএফ) ও বোরো পিপলস ফ্রন্ট জোট বেঁধেছিল এবং পাঁচটির মধ্যে চারটিতে জিতেছিল।

এবার তারা জোট না করে সব কটিতেই হেরেছে। ফলে ভবিষ্যতে কংগ্রেসকে ভাবতে হবে, তারা অন্য দলের সঙ্গে জোট বেঁধে নির্বাচনে লড়বে না এককভাবে লড়বে।

তবে তাৎপর্যপূর্ণভাবে কংগ্রেস ও বিজেপির শরিক দলকে বাদ দিয়ে শুধু দুই প্রধান দলের যদি মূল্যায়ন করা হয়, তাহলে দেখা যাবে যে ৩০টি বিধানসভা আসনে আজ উপনির্বাচন হলো তার মধ্যে ৮টিতে সরাসরি জিতেছে কংগ্রেস, ৭টিতে বিজেপি। বাকিগুলোতে কোনো স্বাধীন দল বা দুই প্রধান দলের শরিকেরা।

হরিয়ানা রাজ্যটি বিজেপির শাসনে থাকলেও সেখানে বিজেপিবিরোধী দল ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লোক দল জিতেছে। দলের নেতা অভয় চাউথালা একে কৃষক সংগ্রামের জয় বলে চিহ্নিত করেছেন। হিমাচল প্রদেশ রাজ্যে তিনটি আসনের তিনটিতেই জিতেছে কংগ্রেস।

Related posts

নিজস্ব অর্থায়নেও সড়ক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা যাবে: ওবায়দুল কাদের

razzak

আজই প্রথম আগারগাঁও পর্যন্ত যাচ্ছে মেট্রো ট্রেন

razzak

চিত্রকর্মের মাধ্যমে আয়ারল্যান্ডে বাংলাদেশ!

razzak

Leave a Comment

Translate »