সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
MIMS 24
এই মাত্র পাওয়া জাতীয় জীবনধারা বাংলাদেশ

ডিজেলের দাম বৃদ্ধি, যে ব্যাখ্যা দিল মন্ত্রণালয়

ডিজেল ও কেরোসিনের দাম ভোক্তাপর্যায়ে প্রতি লিটার ডিজেল ও কেরোসিনের দাম ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার। বুধবার (৩ নভেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে দাম নির্ধারণ করা হয়।

এ বিষয়ে শুক্রবার (৫ নভেম্বর) জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের ব্যাখায় বলা হয়, চলতি অর্থবছরের শুরু থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি পেতে থাকায় সর্বাধিক ব্যবহৃত ডিজেলের ক্ষেত্রে বিপিসি লোকসানের সম্মুখীন হয়।

চলতি বছরের জুনে ডিজেলে লিটারপ্রতি ২ টাকা ৯৭ পয়সা, জুলাইয়ে ৩ টাকা ৭০ পয়সা, অগাস্টে ১ টাকা ৫৮ পয়সা, সেপ্টেম্বরে ৫ টাকা ৬২ পয়সা এবং অক্টোবরে ১৩ টাকা ০১ পয়সা লোকসান দিয়েছে বিপিসি।

এ হিসাবে গত সাড়ে পাঁচ মাসে ডিজেলের ক্ষেত্রে বিপিসির মোট লোকসানের পরিমাণ প্রায় ১১৪৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা; যা সরকারি ভর্তুকি দিয়ে সমন্বয় করতে হবে বলে এতে উল্লেখ করা হয়।

ব্যাখ্যায় বলা হয়, সার্বিক প্রেক্ষাপটে বৃহত্তর জাতীয় স্বার্থে সরকার ৪ নভেম্বর থেকে দেশে ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য পুনর্নির্ধারণ করেছে, যদিও আশপাশের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে ডিজেলের মূল্য এখনো কম।

ব্যাখায় সর্বশেষ দাম বাড়ানো ও কমানোর তথ্যও তুলে ধরা হয়। বলা হয়, সরকার ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে দেশে ডিজেলের মূল্য লিটারপ্রতি ৬৮ টাকা নির্ধারণ করেছিল। পরে ২০১৬ সালের এপ্রিলে তা ৩ টাকা কমিয়ে ৬৫ টাকা নির্ধারণ করে।

মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যায় আরও বলা হয়, বর্তমান ক্রয়মূল্য বিবেচনা করে বিপিসি ডিজেলে লিটার প্রতি ১৩.০১ এবং ফার্নেস অয়েলে লিটার প্রতি ৬.২১ টাকা কমে বিক্রয় করায় প্রতিদিন প্রায় ২০ কোটি টাকা লোকসান দিচ্ছে। অক্টোবরে বিভিন্ন গ্রেডের পেট্টোলিয়াম পণ্যে মোট ৭২৬ কোটি ৭১ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে।

এর আগে গত ৩ নভেম্বর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপপ্রধান তথ্য অফিসার মীর মোহাম্মদ আসলাম উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ডিজেল-কেরোসিনের দাম বাড়ানোর কথা জানানো হয়।

আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম বাড়তে থাকায় ‘লোকসান কমাতে’ দেশের বাজারেও এই জ্বালানির তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে বলে জানায় মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য ক্রমবর্ধমান। বিশ্ববাজারে ঊর্ধ্বগতির কারণে পার্শ্ববর্তী দেশসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশ জ্বালানি তেলের মূল্য নিয়মিত সমন্বয় করছে। গত ১ নভেম্বর ভারতে ডিজেলের বাজার মূল্য প্রতি লিটার ১২৪.৪১ টাকা বা ১০১.৫৬ রুপি ছিল। অথচ বাংলাদেশে ডিজেলের মূল্য প্রতি লিটার ৬৫ টাকা অর্থাৎ লিটার প্রতি ৫৯.৪১ টাকা কম।

 

এতে বলা হয়, বর্তমান ক্রয়মূল্য বিবেচনা করে বাংলাদেশ পেট্টোলিয়াম করপোরেশন ডিজেলে লিটারপ্রতি ১৩.০১ এবং ফার্নেস অয়েলে লিটারপ্রতি ৬.২১ টাকা কমে বিক্রয় করায় প্রতিদিন প্রায় ২০ কোটি টাকা লোকসান দিচ্ছে। অক্টোবর মাসে বাংলাদেশ পেট্টোলিয়াম করপোরেশন বিভিন্ন গ্রেডের পেট্টোলিয়াম পণ্য বর্তমান মূল্যে সরবরাহ করায় মোট ৭২৬.৭১ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে সরকার শুধু ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য প্রতি লিটার ভোক্তাপর্যায়ে ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা পুনর্নির্ধারণ করেছে। নতুন এই মূল্যবৃদ্ধি বুধবার দিবাগত রাত ১২টা থেকেই কার্যকর হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের ২০০৮ সালের ২২ ডিসেম্বর জারিকৃত প্রজ্ঞাপন এবং এতদসংক্রান্ত সময় সময় জারিকৃত সংশোধনীসহ অন্যান্য সব বিষয় অপরিবর্তিত থাকবে। সর্বশেষ ২০১৬ সালের ২৪ এপ্রিল গেজেট প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে পেট্রোলিয়াম পণ্যের মূল্য হ্রাস করে পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছিল।

এদিকে, ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর প্রতিবাদে অনির্দিষ্টকালের জন্য পণ্য পরিবহন বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতি। বেড়েছে এলপিজির দামও। খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়ায় খাদ্যপণ্য, বিশেষ করে কাঁচা শাকসবজির দাম বাড়বে। জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া বৈধ হয়নি।

প্রায় পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে অপরিবর্তিত ছিল জ্বালানি পণ্য কেরোসিন ও ডিজেলের দাম। ২০১৬ সালে জ্বালানি পণ্য দুটির দাম কমিয়ে লিটার প্রতি ৬৫ টাকা করে নির্ধারণ করেছিল সরকার।

তবে বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারে ব্যারেলপ্রতি ৮০ ডলার ছাড়িয়েছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম। এতে প্রতিদিন প্রায় ২০ কোটি টাকা লোকসান দিতে হচ্ছে সরকারকে। হিসাব বলছে, গত অক্টোবরে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন- বিপিসির লোকসান হয়েছে প্রায় ৭২৭ কোটি টাকা। এরই প্রেক্ষিতে বুধবার ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার।

হঠাৎ করেই জ্বালানি তেলের বাড়তি দাম কার্যকর হওয়ায় পাম্পে এসে বিপাকে পড়েন অনেকেই। দাম বাড়ানোকে অবৈধ বলছে ক্যাব। তেলের বাড়তি দাম প্রত্যাহারের দাবিতে শুক্রবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস-ট্রাক বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে এই খাতের মালিক ও শ্রমিকরা।

এদিকে, তেলের দাম নিয়ে সাধারণ মানুষের অসন্তোষের মধ্যেই বাড়ল এলপি গ্যাসের দাম। ১২ লিটারের সিলিন্ডার ৫৪ টাকা বাড়িয়ে এক হাজার ৩১৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

Related posts

শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে নেওয়া যাবে করোনার টিকা

razzak

বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় বাংলাদেশি আহসানুল হক

razzak

বাংলাদেশের জলবায়ু প্রকল্পে এএসইএম অংশীদারদের বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

razzak

Leave a Comment

Translate »