এই মাত্র জাতীয় ব্রেকিং

বিজয়ী বিদ্রোহীদের ফুল দিয়ে বরণ আ.লীগ এমপির

ঢাকার ধামরাইয়ে দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী সাত বিদ্রোহী প্রার্থীকে ফুল দিয়ে বরণ করে নিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা বেনজীর আহমদ। সোমবার দুপুর ৩টার দিকে মুন্নো হাইওয়ে কমিউনিটি সেন্টারে এ বরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বিষয়টি মুহূর্তে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। এ নিয়ে স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মীরা ব্যাপক সমালোচনা করছেন। তারা বলছেন, বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সাংগাঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণে হাইকমান্ডের নির্দেশনা থাকলেও তা উপেক্ষা করা হয়েছে।

জানা যায়, ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে ধামরাইয়ে ১৫ ইউনিয়নে ভোট হয়েছে। এসব ইউনিয়নে বিদ্রোহীদের দাপটে ধরাশায়ী হন নৌকার প্রার্থীরা। ৭ ইউনিয়নে জামানতই হারিয়ে বসেন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। এর মধ্যে ধামরাই সদর ইউনিয়নে সবেক চেয়ারম্যান সাহাবদিন নৌকা প্রতীক নিয়ে পরাজিত হয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী মশিউর রহমানের কাছে। সাহাবদিন বিজয়ী প্রার্থীর ৮ ভাগের একভাগ ভোটও পাননি। যাদবপুর ইউনিয়নে পরাজিত হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল মজিদ। বিজয়ী হন স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান। চৌহাটে পরাজিত হন নৌকার প্রার্থী আনোয়ার শিকদার। সেখানে বিজয়ী হন সাবেক চেয়ারম্যান পারভীন হাসান প্রীতি। সোমভাগ ইউনিয়নে বিদ্রোহী আওলাদ হোসেনের কাছে পরাজিত হন নৌকার আজাহার আলী। কুল্লা ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী লুৎফর রহমানের কাছে হারেন সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ প্রার্থী কালিপদ সরকার। ভাড়ারিয়া ইউনিয়নে বিদ্রোহী মোসলেহ উদ্দিনের কাছে পরাজিত হন নৌকার শাহ আলম। নান্নার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবুল বাশার বাদশা পরাজিত হন বিদ্রোহী আলতাফ হোসেন মোল্লার কাছে। সোমবার দুপুর ৩টার দিকে মুন্নো হাইওয়ে কমিউনিটি সেন্টারে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী ওইসব বিদ্রোহীকে ফুল দিয়ে বরণ করেন ঢাকা-২০ (ধামরাই) আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা বেনজীর আহমদ। এ সময় তিনি আগামী নির্বাচনে তার পক্ষে কাজ করতে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানদের নির্দেশনা দেন।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ধামরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সাখাওয়াত হোসেন সাকু, সহসভাপতি মাসুম খান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ গোলাম কবীর মোল্লা, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ গোলাম কবীর মোল্লা, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সিরাজউদ্দিন সিরাজ প্রমুখ।

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের অনেক নেতাকর্মী বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে পাশের জেলা মানিকগঞ্জে বিদ্রোহীদের দল থেকে বহিষ্কার করলেও এখানে তাদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে দলীয় হাইকমান্ডের নির্দেশনারও তোয়াক্কা করা হয়নি বলে জানান তারা।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা বেনজীর আহমদ বলেন, এখানে সব নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানকে বরণ করে নেওয়া হয়েছে। আলাদাভাবে কাউকে বরণ করে নেওয়া হয়নি। তিনি বলেন, বিদ্রোহীদের বিষয়ে হাইকমান্ডের নির্দেশনা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related posts

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি মালিকানাধীন প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় ‘ইনোভেটিভ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি’র উদ্বোধন

Mims 24 : Powered by information

বরিশাল বিভাগে পানিতে মলের জীবাণু

Irani Biswash

আমরা ক্ষমতায় বলে করোনা মোকাবেলা সম্ভব হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

razzak

Leave a Comment

Translate »