ডিসেম্বর ৭, ২০২২
MIMS 24
আন্তর্জাতিক এই মাত্র এই মাত্র পাওয়া জাতীয় জীবনধারা ব্রেকিং স্বাস্থ্য

বিশ্বে অনাহারের ঝুঁকিতে ৩৪ কোটি ৫০ লাখ মানুষ: জাতিসংঘ

বিশ্ব জুড়ে বেড়েই চলছে জ্বালানি তেলের দাম। আর জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রভাব পড়ছে খাদ্য সামগ্রীর দামেও। এমন পরিস্থিতিতে বিশ্বের ৩৪ কোটি ৫০ লাখ মানুষ অনাহারের দিকে অগ্রসর হচ্ছে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির (ডব্লিউএফপি) নির্বাহী পরিচালক ডেভিড বিসলি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে বলেন, বিশ্বের ৮২টি দেশের ৩৪ কোটি ৫০ লাখ মানুষ তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন। এটি করোনাভাইরাস মহামারি আঘাত হানার আগে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার মুখে থাকা মানুষের সংখ্যার তুলনায় দ্বিগুণেরও বেশি।

তিনি বলেন, ৪৫টি দেশের পাঁচ কোটি মানুষ তীব্র অপুষ্টিতে ভুগছে এবং দুর্ভিক্ষ দরজায় কড়া নাড়ছে। এটি অবিশ্বাস্যভাবে উদ্বেগজনক।

ক্রমবর্ধমান সংঘাত, মহামারির অর্থনৈতিক প্রভাব, জলবায়ু পরিবর্তন, জ্বালানির দাম বৃদ্ধি এবং ইউক্রেন যুদ্ধের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘পূর্বে যা ছিল তা হচ্ছে ক্ষুধার ঢেউ, আর এখন হচ্ছে ক্ষুধার সুনামি।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়া আগ্রাসন শুরুর পর থেকে খাবার, জ্বালানি এবং কৃষি জমির সারের খরচ বৃদ্ধি সাত কোটি মানুষকে অনাহারের কাছে ঠেলে দিয়েছে, বলেন ডেভিড বিসলি।

জুলাই মাসে রাশিয়ার হাতে অবরুদ্ধ কৃষ্ণ সাগরের ৩টি বন্দর থেকে ইউক্রেনীয় শস্য পাঠানোর অনুমতি দেয়া এবং বিশ্ব বাজারে রাশিয়ান সার ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকা সত্ত্বেও, ‘এ বছর একাধিক দুর্ভিক্ষের একটি বাস্তব এবং বিপজ্জনক ঝুঁকি রয়েছে’ বলেও সতর্ক করেন ডব্লিউএফপির নির্বাহী পরিচালক।

হুঁশিয়ারি দিয়ে ডব্লিউএফপির এই শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা যদি পদক্ষেপ না নিই, তাহলে বর্তমানে খাদ্যপণ্যের দাম নিয়ে যে সংকট চলছে, তা ২০২৩ সালে গিয়ে খাবার না পাওয়ার সংকটে পরিণত হবে।’

বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির হিসাবে ২০২১ সালের শুরুতে বিশ্বে অনাহারে থাকা মানুষের সংখ্যা ছিল ২৭ কোটি ৬০ লাখের কাছাকাছি, যা এখন ২৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। তার আগের বছর অর্থাৎ ২০২০-র গোড়ায় কোভিড মহামারি পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার আগে এমন মানুষেরা সংখ্যা ছিল আনুমানিক সাড়ে তের কোটি।

চলতি পরিস্থিতির পেছনে কোভিড মহামারিজনিত আর্থিক দুরবস্থা তো আছেই, তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এর প্রধান কারণ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এ দুটি দেশই বিশ্বের বহু দেশে জ্বালানি এবং খাদ্যসামগ্রী রপ্তানি করত। যুদ্ধ শুরুর পর তা অনেকাংশেই বিঘ্নিত হয়েছে।

Related posts

মার্কিন নাগরিকদের কানাডায় না যাওয়ার পরামর্শ

razzak

খাদ্য বিষক্রিয়ায় স্বর্ণা ও সম্পা নামে দুই জমজ বোনের মৃত্যু

Irani Biswash

দেশে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন দেড় কোটিরও বেশি মানুষ

razzak

Leave a Comment

Translate »