ফেব্রুয়ারী ২, ২০২৩
MIMS 24
এই মাত্র এই মাত্র পাওয়া জাতীয় জীবনধারা বাংলাদেশ ব্রেকিং ব্রেকিং নিউজ

উপকূলবাসীর স্বপ্নের ‘গলাচিপা সেতু’ নির্মাণ প্রকল্পের অনুমোদন

মু: মাহবুবুর রহমান

পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার রামনাবাদ নদীর ওপর গলাচিপা সেতু নির্মাণ প্রকল্পটির অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। গত মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) একনেকে চার হাজার ৮২৬ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয়ে যে ৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয় তার মধ্যে অন্যতম হলো পটুয়াখালীর লেবুখালী-বাউফল-গলাচিপা-আমড়াগাছিয়া সড়কের রামনাবাদ নদীর ওপর গলাচিপা সেতু নির্মাণ প্রকল্প।

গলাচিপা সেতু নির্মাণ প্রকল্পটির প্রাথমিকভাবে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৫২১ কোটি ২৬ লাখ টাকা। সড়ক ও জনপদ (সওজ) অধিদফতর কাজটি বাস্তবায়ন করবে। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ কর্তৃক প্রস্তাবিত লেবুখালী-বাউফল-গলাচিপা-আমড়াগাছিয়া জেলা মহাসড়কের (জেড-৮৮০৬) ৭০তম কিলোমিটারে রামনাবাদ নদীর ওপর গলাচিপা সেতু নির্মাণ প্রকল্পটি ২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৫ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের কথা রয়েছে।

পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার রামনাবাদ নদীর ওপর সেতুর অভাবে দুর্ভোগে রয়েছে গলাচিপা, দশমিনা ও রাঙ্গাবালী উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ। রামনাবাদ নদী পারাপারে ফেরি থাকলেও জোয়ারের সময় তা বন্ধ থাকে। ফলে চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হয় এখানকার বাসিন্দাদের। উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করতে সমস্যায় পড়তে হয় কৃষক ও ব্যবসায়ীদের। কাজেই সেতুটি নির্মিত হলে এতদঞ্চলের মানুষের সামাজিক অবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নয়নও হবে।

প্রকল্পের প্রস্তাবনায় বলা হয়, পটুয়াখালী জেলার সদর ও বাউফল, দশমিনা, গলাচিপা, রাঙ্গাবালী, আমতলী উপজেলা নদী দ্বারা বেষ্টিত। লেবুখালী-বাউফল-গলাচিপা-আমড়াগাছিয়া (জেড-৮৮০৬) সড়কটি ঢাকা (যাত্রাবাড়ী)-মাওয়া-ভাঙ্গা-বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের (এন-৬) পাগলা নামক স্থান হতে শুরু হয়ে বাউফল উপজেলার মধ্যে দিয়ে দশমিনা, গলাচিপা হয়ে পটুয়াখালী জেলার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করেছে। সড়কটি বাউফল ও দশমিনা উপজেলার সঙ্গে পটুয়াখালী জেলা সদরের যাতায়াতের সংক্ষিপ্ততম পথ। বর্তমানে যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রাখার স্বার্থে সড়কটির ৭০তম কিলোমিটারে অবস্থিত রামনাবাদ নদীর ওপর ফেরী সার্ভিস পরিচালিত হচ্ছে।

এতে আরো বলা হয়েছে, নিরাপদ ও নিরবচ্ছিন্ন সড়ক যোগাযোগ স্থাপন করতে রামনাবাদ চ্যানেলে দুই লেন বিশিষ্ট ৮৮২ দশমিক ৮১ (৮৮২. ৮১) মিটার দৈর্ঘ্যের পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ প্রয়োজন। এ পরিপ্রেক্ষিতে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ থেকে প্রকল্পটির প্রস্তাব করা হয়। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে প্রতিবছর ৮ শতাংশ হারে সড়কটির যান চলাচল বৃদ্ধি পাবে। এ সেতু নির্মাণ হলে বছরে প্রায় ৩৮ কোটি টাকার সাশ্রয় হবে।

পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসনের সংসদ সদস্য ও নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য এস.এম. শাহজাদা বলেন, পটুয়াখালীর রামনাবাদ নদীর ওপর সেতু নির্মাণের মাধ্যমে বরিশাল বিভাগীয় সদর ও পটুয়াখালী জেলার বিভিন্ন উপজেলার সঙ্গে গলাচিপা উপজেলার নিরবচ্ছিন্ন ও নিরাপদ সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হবে। এ সেতুর মাধ্যমে পটুয়াখালী জেলা সদরের সঙ্গে গলাচিপা উপজেলার সরাসরি সড়ক যোগাযোগ নিশ্চিত হবে। এছাড়া সেতুটি নির্মিত হলে গলাচিপা উপজেলা ছাড়াও রাঙ্গাবালী এবং দশমিনা উপজেলার সাথে জেলা সদরের সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হবে।

স্থানীয় এমপি এস.এম. শাহজাদা আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণাঞ্চলের ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। উন্নয়নের মহাস্রোতের অংশ হিসেবে গলাচিপার এ ব্রিজ। আমরা সবাই জানি, ১৯৭০ সালে বন্যার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের এ এলাকায় ত্রাণ নিয়ে এসেছিলেন। তখন থেকেই তিনি এ এলাকার দুর্ভোগ লাঘবের চিন্তা করেছেন। আর এখন জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পটুয়াখালী জেলা শহরকে গলাচিপা উপজেলা থেকে বিভক্ত করেছে যে রামনাবাদ নদী তার ওপরই নির্মিত হবে উপকূলবাসীর স্বপ্নের গলাচিপা সেতু।

Related posts

পথচারীকে ধাক্কা দিয়ে খাদে পড়ল গাড়ি, নারী-শিশুসহ ৭ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু

razzak

১২ সেপ্টেম্বর পাঁচ বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

razzak

চলচ্চিত্র পরিচালকদের করোনা চিকিৎসায় ৪ টি হাসপাতাল

Irani Biswash

Leave a Comment

Translate »