এই মাত্র এই মাত্র পাওয়া জাতীয় জীবনধারা ব্রেকিং ব্রেকিং নিউজ সাহিত্য

‘অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার’ পেলেন সাংবাদিক শাহ্‌নাজ মুন্নী

‘অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার ১৪২৯’ পেলেন কবি, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক শাহ্‌নাজ মুন্নী। গল্প, উপন্যাস ও কবিতায় অনন্য অবদানের জন্য তাকে এই স্বীকৃতি দেওয়া হলো।

শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে তার হাতে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে শাহ্‌নাজ মুন্নীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধান অতিথি কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক আনোয়ারা সৈয়দ হক। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কথাসাহিত্যিক ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হামীম কামরুল হক। সভাপতিত্ব করেন পাক্ষিক অনন্যা ও দৈনিক ইত্তেফাক সম্পাদক তাসমিমা হোসেন।

পেশায় সাংবাদিক। নিজের পেশাগত দায়িত্বের বাইরে সাহিত্যের সব শাখায় বিচরণ করেছেন শাহনাজ মুন্নী। বয়সে তরুণ হলেও সাহিত্যচর্চায় শাহনাজ মুন্নী নতুন মাত্রা যোগ করছেন বলে মন্তব্য করেন ‘অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার ১৪২৯’ প্রদান অনুষ্ঠানের বিজ্ঞ অতিথিবৃন্দ। তাঁর অগ্রজ, অনুজ কথাসাহিত্যিকদের মতে, ৩০ বছরের সাহিত্যচর্চায় শাহ্‌নাজ মুন্নী তিলে তিলে নিজেকে গড়ে তুলেছেন। নারীবাদের ক্ষেত্রে পুরুষকে নারীর প্রতিপক্ষ না করে সমকক্ষ হিসেবে হাজির করেছেন।

অনুষ্ঠানের আলোচনায় বলা হয়, শাহ্‌নাজ মুন্নী তাঁর কবিতায় ক্রুদ্ধ এক অন্ধকারের গল্প বলেছেন, হেঁটেছেন হৃদয়ঘরের বারান্দায়। কলমের মাধ্যমে সৃষ্টি করেছেন নতুন ভুবন। এই বিশাল পথে তাঁর সঙ্গী শুধু শব্দ। এ পর্যন্ত শাহ্‌নাজ মুন্নীর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ২৪টি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, ‘এলো ক্রুদ্ধ অন্ধকার’, ‘বাদুর ও ব্র্যান্ডি’, ‘তৃতীয় ঘণ্টা পড়ার আগেই’, ‘পান সুন্দরী’, ‘নির্বাচিত গল্প’, ‘আমি আর আমিন যখন আজিমপুর থাকতাম’। এবার অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশ পাচ্ছে উপন্যাস ‘স্নানের শব্দ’।

পুরস্কার পাওয়ার প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে শাহ্‌নাজ মুন্নী বলেন, সাহিত্যে এটা তাঁর প্রথম আনুষ্ঠানিক পুরস্কার। তবে দীর্ঘ সাহিত্যজীবনে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া ও অনুপ্রেরণার অনেক অনানুষ্ঠানিক পুরস্কার জমেছে তাঁর। বাংলাদেশের নারীদের অনেক প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে চলতে হয়, সামাজিক সব দায়িত্ব ও কর্তব্য নারীর ওপর চাপানো হয়। সেসব পালন করে একজন নারী সাহিত্যচর্চায় অংশ নিতে পারেন। শাহ্‌নাজ মুন্নী জানান, তিনি লেখার মাধ্যমে আনন্দ খুঁজে পান। সাহিত্যচর্চা আজীবন চালিয়ে যেতে চান বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

শাহ্‌নাজ মুন্নীর জন্ম ১৯৬৯ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞানে উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণের পর পেশা হিসেবে বেছে নেন টেলিভিশন সাংবাদিকতা। একদিকে সামাজিক দায়বোধ থেকে তার পেশাগত জীবন, অন্যদিকে সামাজিক ঘটনা তাকে আলোড়িত করে। সেই তাগিদ থেকে তিনি একের পর এক লিখে চলেন গল্প, কবিতা, উপন্যাস, শিশুসাহিত্য ও প্রবন্ধ।

বাংলা ১৪০১ সনে (১৯৯৩ সাল) ‘অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার’ প্রবর্তন করা হয়। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে প্রতিবছর একজন কৃতী নারী সাহিত্যিক অথবা সাহিত্য–গবেষককে এ পুরস্কার দেওয়া হয়।

এ পর্যন্ত যারা ‘অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার’ পুরস্কার পেয়েছেন

সেলিনা হোসেন, রিজিয়া রহমান, নীলিমা ইব্রাহিম, দিলারা হাশেম, রাবেয়া খাতুন, সনজীদা খাতুন, শহিদ জননী জাহানারা ইমাম (মরণোত্তর), নূরজাহান বেগম, রাজিয়া খান, রুবী রহমান, পূরবী বসু, আনোয়ারা সৈয়দ হক, মকবুলা মনজুর, ঝর্ণাদাশ পুরকায়স্থ, সালেহা চৌধুরী, নূরজাহান বোস, মালেকা বেগম, কাজী রোজী, নিয়াজ, জাহানারা নওশিন, সোনিয়া নিশাত আমিন, বেগম আকতার কামাল, বেগম মুশতারী শফি ও রঞ্জনা বিশ্বাস।

Related posts

বন্ধুদের স্মৃতিতে অমলিন শেখ কামাল

razzak

হঠাৎই আমাজনের সম্পদের পরিমান বৃদ্ধি পেল

Irani Biswash

বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি হচ্ছেন মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন আহমেদ

Mims 24 : Powered by information

Leave a Comment

Translate »