আন্তর্জাতিক এই মাত্র এই মাত্র পাওয়া জনদুর্ভোগ জীবনধারা দুর্ঘটনা ব্রেকিং ব্রেকিং নিউজ

তুরস্ক ও সিরিয়ায় ভূমিকম্প: মৃতের সংখ্যা বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে

ঘড়িতে তখন স্থানীয় সময় ভোররাত ৪টা ১৭ মিনিট। সীমান্তের দুই দিকে তুরস্ক ও সিরিয়ার বাসিন্দারা ঘুমাচ্ছিলেন। এ সময় শক্তিশালী এক ভূমিকম্প আঘাত হানে ওই জনপদে। ভূমিকম্পটির মাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৮।

ভয়াবহ এ ভূমিকম্পে এ পর্যন্ত দুই দেশের সাড়ে তিন হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। মৃতের সংখ্যা বাড়ছে সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে। এতে আহত হয়েছেন কয়েক হাজার। বহু মানুষ নিখোঁজ। অসংখ্য ভবন ও অবকাঠামো ধসে পড়েছে। আহত ব্যক্তিদের আহাজারি চলছে হাসপাতালে।

সিরিয়ায় ১৯৯৫ সালে জাতীয় ভূমিকম্প কেন্দ্র তৈরি হওয়ার পর এটিই সে দেশে আঘাত করা সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প বলে জানিয়েছেন ঐ কেন্দ্রের প্রধান রায়েদ আহমেদ৷

ভূমিকম্পের কেন্দ্র ছিল সিরিয়ার সীমান্তবর্তী তুরস্কের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর গাজিয়ানতেপ। তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুলেমন সোইলু বলেন, ভূমিকম্প এত শক্তিশালী ছিল যে ১০টি শহরে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানি হয়েছে।

ভূমিকম্পটি এতটাই শক্তিশালী ছিল যে তুরস্ক ও সিরিয়া ছাড়াও লেবানন ও সাইপ্রাস এমনকি তুরস্ক থেকে বহু দূরে থাকা ডেনমার্কের গ্রিনল্যান্ডে ভূকম্পন অনুভূত হয়।

বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ভূমিকম্পে বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়ে প্রবল শীতের মধ্যেই হাজারো বাস্তুহারা মানুষের দুর্দশা চরমে উঠেছে। হিমেল আবহাওয়া উদ্ধার প্রচেষ্টা ব্যাহত করছে।

ভূমিকম্প তুরস্কের শহরগুলোতে ধবংসলীলা চালিয়েছে, এতে সম্পূর্ণ লণ্ডভণ্ড অনেক আবাসিক এলাকা। অন্যদিকে, যুদ্ধের কারণে উদ্বাস্তু লাখ লাখ সিরিয় নাগরিকের দুর্ভোগও উঠেছে চরমে।

দুটি দেশেই দুর্গত এলাকা জুড়ে এক বিশাল উদ্ধার অভিযান চলছে। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সহায়তার জন্য ‘লেভেল ৪ অ্যালার্ম’ ঘোষণা করা হয়েছে।

এর আগে ১৯৩৯ সালে তুরস্কে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছিল৷ সেই সময় ৩৩ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন৷ এছাড়া ১৯৯৯ সালে ৭.৪ মাত্রার আরেক ভূমিকম্পে প্রায় ১৭ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিলেন৷

Related posts

আড়াই মাস পর করোনায় সর্বনিম্ন ৭০ জনের মৃত্যু

razzak

স্বামীর গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে যা বললেন শিল্পা

Mims 24 : Powered by information

বিশ্বে করোনায় ৬১ লাখ ৭১ হাজার ২৩৮ জনের মুত্যু

razzak

Leave a Comment

Translate »