আন্তর্জাতিক এই মাত্র এই মাত্র পাওয়া জাতীয় জীবনধারা প্রবাস কথা প্রিয় প্রবাসী ব্রেকিং ব্রেকিং নিউজ

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক পেলেন তিন ব্যক্তি ও কানাডার একটি প্রতিষ্ঠান

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক-২০২৩ গ্রহণ করেছেন তিন ব্যক্তি ও একটি প্রতিষ্ঠান। এ বছর পদক প্রাপ্তরা হলেন ট্যুরিস্ট পুলিশের প্রধান (অতিরিক্ত আইজিপি) হাবিবুর রহমান, অবসরপ্রাপ্ত সহকারী অধ্যাপক রনজিত সিংহ, ভারতের মাহেন্দ্র কুমার মিশ্র এবং কানাডার দ্য মাদার ল্যাঙ্গুয়েজ লাভারস অফ দ্য ওয়ার্ল্ড সোসাইটি।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক দেওয়া হয়। ২০২১ সালে এই পদক দেওয়া শুরু হয়। দুই বছর পরপর দেওয়া হয় এই পদক।

মঙ্গলবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এই পদক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খানসহ আরো অনেকে।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট সূত্রে জানা গেছে, বেদে জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষা সংরক্ষণ, পুনরুজ্জীবন ও বিকাশে ভূমিকা রাখায় পুলিশ কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান এই পদক পেলেন। এ বিষয়ে তার ‘ঠার : বেদে জনগোষ্ঠীর ভাষা’ নামে একটি বই রয়েছে।

পদকপ্রাপ্ত রনজিত সিংহ পদার্থবিদ্যার একজন অবসরপ্রাপ্ত সহকারী অধ্যাপক (কলেজের) ও গবেষক। হারিয়ে যেতে বসা মণিপুরি বিষ্ণুপ্রিয়া ভাষা সংরক্ষণ, পুনরুজ্জীবন ও বিকাশে কাজ করছেন তিনি। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এই ভাষায় সাহিত্যচর্চা, গবেষণা ও বই প্রকাশে তিনি অবদান রেখেছেন। আর ভারতের মাহেন্দ্র কুমার মিশ্র বহু ভাষার শিক্ষা নিয়ে কাজ করেন।

পদকের জন্য মনোনীত প্রতিষ্ঠান কানাডার দ্য মাদার ল্যাঙ্গুয়েজ লাভারস অফ দ্য ওয়ার্ল্ড সোসাইটি ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা আদায়ের প্রক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল। এ সোসাইটির বর্তমান সভাপতি আমিনুল ইসলাম সংগঠনের পক্ষে পদক গ্রহণ করেন।

কানাডার ভ্যাঙ্কুভারের রফিকুল ইসলাম এবং আব্দুস সালামের উদ্যোগে এ সংগঠনটিই প্রথম জাতিসংঘে ২১শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস করণের প্রস্তাব দেয় এবং তারই ধারাবাহিকতায় ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর ৩০তম সাধারণ অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারিকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

আমিনুল ইসলাম নিজেও ভাষা নিয়ে কাজ করেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত মাতৃভাষা দিবসকে যথাযথভাবে রূপায়িত লক্ষ্যে ‘বিসি মডেল’ প্রবর্তন করেন, যে মডেলটা কানাডার বৃটিশ কলাম্বিয়ার বিভিন্ন স্কুল বোর্ডে গ্রহণ করা হয়েছে।

পরবর্তীতে অন্টারিও স্কুল বোর্ডও এই মডেলটি গ্রহণ করেছে। আমিনুল ইসলামের অবদান কানাডায় স্থানীয়, প্রাদেশিক এবং জাতীয় পর্যায়ে নানাভাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। ২০২২ সালে তিনি কানাডার ফেডারেল গভর্নমেন্ট মি. ইসলামকে ‘কুইনস প্লাটিনাম জুবিলি অ্যাওয়ার্ড’ লাভ করেন।

Related posts

হামলা ঠেকাতে শিক্ষকদের হাতে অস্ত্র দেবে যুক্তরাষ্ট্র

razzak

মুরাদ বিদেশে যাবেন নাকি দেশে থাকবেন, সেটা তার ব্যাপার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

razzak

একসঙ্গে ৪ সন্তানের জন্ম দিলেন আশা

razzak

Leave a Comment

Translate »