আন্তর্জাতিক এই মাত্র এই মাত্র পাওয়া খেলাধুলা ব্রেকিং ব্রেকিং নিউজ

ম্যাক্সওয়েলের অতিমানবীয় ২০১ রান: আফগানদের মুখের গ্রাস কেড়ে সেমিতে অজিরা

২৯২ রান তাড়া করতে নেমে, ৯১/৭ থেকে ২৯৩/৭, অবিশ্বাস্য!! একা গ্লেন ম্যাক্সওয়েলই জিতিয়ে দিলেন অস্ট্রেলিয়াকে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ জিতলেই সেমিফাইনাল নিশ্চিত আর হারলে সমীকরণের মারপ্যাচ। এমন অবস্থায় মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপের নিজেদের অষ্টম ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হয়েছিল অজিরা। সে ম্যাচে ওয়ানডে ইতিহাসে রান তাড়ায় প্রথম দ্বিশতকের রেকর্ড মালিক হয়ে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছেন ম্যাক্সওয়েল।

আফগানদের দেয়া ২৯২ রানের রেকর্ড লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল খেলেছেন অতিমানবীয় ইনিংস। এক অসাধারণ ইনিংস খেললেন তিনি, যেখানে অকল্পনীয় সব ব্যাপার ঘটেছে অবলীলায়! তর্কসাপেক্ষে এটিকে ওয়ানডে ইতিহাসের সেরা ইনিংস বললেও ভুল বলা হবে না। প্রথম অস্ট্রেলিয়ান হিসেবে তার অপরাজিত ২০১ রানের ইনিংসে ১৯ বল বাকি রেখে ৩ উইকেটে ম্যাচ জিতেছে অস্ট্রেলিয়া।

৯১ রানে ৭ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ওয়াংখেড়েতে অস্ট্রেলিয়ার জয়ের সম্ভাবনা হারিয়ে যেতে বসেছিল। বিশ্বকাপে কোনো দলই পরে ব্যাটিং করে এত কম রানে এতগুলো উইকেট হারিয়ে এর আগে ম্যাচ জেতেনি। ম্যাক্সওয়েল সেখান থেকে প্যাট কামিন্সের সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন অষ্টম উইকেট জুটিতে যোগ করেছেন ওয়ানডেতে রেকর্ড ২০২ রান। এই জুটিতে অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়কের অবদান ৬৮ বলে ১২ রান।

এদিন বিশ্বকাপের ইতিহাসে তৃতীয় দ্বিশতরান করলেন ম্যাক্সওয়েল। খেললেন অতিমানবীয় সব শট। আফগানিস্তানকে যেন একাই হারিয়ে দিলেন। দলের মোট ২৯৩ রানের মধ্যে ২০১ রানই যে তাঁর। একটা সময় দৌড়াতেই পারছিলেন না। দাঁড়িয়ে থেকেই একের পর এক ছক্কা এবং চার হাঁকিয়ে দলকে অবিশ্বাস্য জয় এনে দেন। খাদের কিনারা থেকে অস্ট্রেলিয়াকে এনে দেন অবিশ্বাস্য এক জয়।

আফগানিস্তান ৯১ রানে অস্ট্রেলিয়ার ৭ উইকেট তুলে নিলে একসময় সমীকরণ এমন দাঁড়ায়, আফগানিস্তান বনাম ম্যাক্সওয়েল ম্যাচ। আফগানরা জানতেন, জয় থেকে ১ উইকেট দূরে দাঁড়িয়ে তাঁরা। কিন্তু তাঁরা সেই এক উইকেট অর্থাৎ ম্যাক্সওয়েলের উইকেট নিতে পারেনি। শেষ ২৪ বলে অস্ট্রেলিয়ার দরকার ছিল ২১ রান, মুজিবের করা ৪৭তম ওভারের প্রথম বল ডট দিয়েছিলেন ম্যাক্সওয়েল। এরপর—ছক্কা, ছক্কা, চার, ছক্কা। যার মধ্যে শেষটিতে ম্যাক্সওয়েল প্রথম অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান ও রানতাড়ায় প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে পেয়েছেন দ্বিশতক।

এদিন ম্যাক্সওয়েল ১২৮ বলে ২১টি চার ও ১০ ছক্কায় ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। বলের হিসাবে যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। অস্ট্রেলিয়ার ওয়ানডে ইতিহাসের সর্বোচ্চ ইনিংসও এটি। ৬ বা তার পরে ব্যাট করতে নেমে কপিল দেবের অপরাজিত ১৭৫ রানের রেকর্ডও ভেঙেছেন ম্যাক্সওয়েল। ১৯৮৩ বিশ্বকাপে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওই অতিমানবীয় ইনিংস খেলেছিলেন কপিল।

এই মহাকাব্যিক ইনিংসে ম্যাক্সওয়েল ব্যক্তিগত অর্জনের পাশাপাশি দলকেও জায়গা করে দেন রেকর্ডবুকে। বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডও এটিই। এর আগে ১৯৯৬ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের চেন্নাইয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৮৭ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ৬ উইকেটে জিতেছিল তারা। এছাড়া ওয়ানডেতে অষ্টম উইকেটে জুটিতে রেকর্ড সর্বোচ্চ ২০১ রানের মালিকও এখন ম্যাক্সওয়েল ও কামিন্স। এর আগের রেকর্ডটি ছিল ২০০৬ সালে কেপ টাউনে দক্ষিণ আফ্রিকার জাস্টিন কেম্প ও অ্যান্ড্রু হলের ১৩৮ রানের জুটি।

ম্যাক্সওয়েলের অবিশ্বাস্য নকের উপর বহর করে জিতলো অস্ট্রেলিয়া। এই জয়ে ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার পর তৃতীয় দল হিসেবে বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল নিশ্চিত করলো অজিরা। অথচ টুর্নামেন্টের শুরুতে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা প্রথম দুই ম্যাচ হারার পর সবাই তাদের বাতিলের খাতায় ফেলে দিয়েছিল। সেটিই মনে করিয়ে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হওয়া ম্যাক্সওয়েল বলেন, ‌‘প্রথম দুই ম্যাচ হারার পর মানুষ আমাদের বাতিলের খাতায় ফেলে দিয়েছিল। আমাদের ভেতর বিশ্বাস ছিল আমরা ফিরবো। আজকের ম্যাচের পর এটা আরো বেড়েছে আমাদের মধ্যে।’

Related posts

ঈদের নামাজের সময় আফগানিস্তানের প্রেসিডেনশিয়াল প্যালেসের কাছে রকেট হামলা

Irani Biswash

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই

Mims 24 : Powered by information

সেরাম ইনস্টিটিউট ব্রিটেনে বিনিয়োগের চুক্তি করেছে

Irani Biswash

Leave a Comment

Translate »