এই মাত্র এই মাত্র পাওয়া খেলাধুলা জাতীয় জীবনধারা বাংলাদেশ ব্রেকিং ব্রেকিং নিউজ

প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট মুশফিকুর রহিম

বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটের হিসাবে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হলেন মুশফিকুর রহিম। অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিম নিজেও হয়তো বুঝে উঠতে পারেননি কী করেছেন তিনি। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মিরপুর টেস্টে ব্যাটিংয়ের সময়ে হাত দিয়ে বল আটকিয়ে এ অঘটনের জন্ম দেন তিনি।

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় সেশনে দেখা গেলো এমন অভূতপূর্ব দৃশ্য। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে ৪০.৪ ওভারে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হন মুশফিকুর রহিম।

ক্রিকেটে বিভিন্ন ধরণের  কেতাবি আউট আছে। চিরচেনা ক্যাচ, বোল্ড বা অন্য কোনো আউট না। মুশফিকুর রহিম নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আউট হলেন হাত দিয়ে বল আটকে দিয়ে। কাইল জেমিসনের বল সলিড ডিফেন্স করেছিলেন মুশফিক। এরপর অহেতুক বলটি ডান হাত দিয়ে ধরে ফেলেন অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার।

বল ব্যাটে লেগে মাটিতে পড়ে বাউন্স খেয়েছিল। মুশফিক ইচ্ছাকৃতভাবে বলটি ডান হাত দিয়ে ধরেন। নিউজিল্যান্ডের খেলোয়াড়েরা এতে ‘অবস্ট্র্যাক্ট দ্য ফিল্ড’ আউটের আবেদন করেন। তৃতীয় আম্পায়ার ভিডিও রিপ্লে দেখে মুশফিককে আউট ঘোষণা করেন। ফলে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটার হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ‘অবস্ট্র্যাক্ট দ্য ফিল্ড’ আউট হন মুশফিক।

মুশফিকের অদ্ভুত এই আউটের সময় ধারাভাষ্যে ছিলেন তামিম ইকবাল। মুশফিকের এমন আউটে রীতিমতো অবাকই হয়েছেন তামিম। মুশফিকের আউটের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তামিম বলেন, ‘মুশফিকের এমন আউট খুবই হতাশাজনক। ৮০টিরও বেশি টেস্ট খেলেছে মুশফিক। তার জানা উচিত ছিল এটা করা যায় না। এ ধরনের আউটে এটা কোনো অজুহাত হতে পারে না।’

ক্রিকেটের আইনে ৩৭.১.১ ধারায় এই আউট সম্পর্কে বলা হয়েছে, ‘ব্যাটার যদি যে হাতে ব্যাট ধরা নেই সেই হাত দিয়ে বল ধরেন, তবে এই আউট হবেন। কিন্তু যদি চোটের হাত থেকে বাঁচতে বল ধরেন তবে তিনি আউট হবেন না।’ এই আইনটি এক সময় ‘হ্যান্ডলড দ্য বল’ আউট নামে পরিচিত ছিল। কিন্তু ২০১৭ সালে ‘হ্যান্ডলড দ্য বল আউট’ বাদ দিয়ে এই আউটকে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউটের অর্ন্তভুক্ত করা হয়।

পুরুষদের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১২তম ব্যাটার হিসেবে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হলেন মুশফিক। টেস্টে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে। ১৯৫১ সালে ওভাল টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম এভাবে আউট হয়েছিলেন ইংলিশ ওপেনার লেন হাটন।

এ ছাড়া ওয়ানডে ক্রিকেটে পাকিস্তানের চার ব্যাটার রমিজ রাজা, ইনজামাম-উল-হক, মোহাম্মদ হাফিজ এবং আনোয়ার আলি এমন বিরল আউট হয়েছিলেন। এছাড়া ভারতের অমরনাথ, ইংল্যান্ডের বেন স্টোকস, যুক্তরাষ্ট্রের মার্শাল এবং লঙ্কান ব্যাটার গুনাথিলাকাও একদিনের ক্রিকেটে এমন আউটের নজির গড়েছেন।

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণ টি-টোয়েন্টিতে এমন আউট হয়েছেন তিন জন। ইংল্যান্ডের জেসন রয়, মালদ্বীপের হাসান রাশিদ এবং অস্ট্রেয়ার রাজমাল সিগিওয়াল এমন আউট হয়েছেন।

মেয়েদের ওয়ানডেতে একজনই ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হয়েছেন। ২০১৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এই আউট হয়েছিলেন ভারতের তিরুশ কামিনি। মেয়েদের আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দুজন এই আউট হয়েছেন। ২০১৮ সালে এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হন ভারতের আঞ্জুয়া পাতিল। গত বছর এপ্রিলে উইন্ডহকে এই আউট হন জিম্বাবুয়ের মেরি-অ্যান মুসোন্দা।

Related posts

গ্রেপ্তার হলেন শিল্পা শেঠীর স্বামী রাজ কুন্দ্রা

Irani Biswash

আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে সেমিফাইনালের পথে নিউজিল্যান্ড

Mims 24 : Powered by information

হাঁটুর ইনজুরিতে মাঠের বাইরে সুয়ারেজ

razzak

Leave a Comment

Translate »